in ,

টিকিটপ্রত্যাশীদের দীর্ঘ লাইন

♦প্রতিবেদক, মাধ্যম: কমলাপুর রেলস্টেশনের কাউন্টারগুলোর সামনে টিকিটপ্রত্যাশী মানুষের দীর্ঘ লাইন। কাঙ্ক্ষিত টিকিট পেতে কেউ শুক্রবার রাতে, কেউ সেহেরির পর এসে লাইনে দাঁড়িয়েছিলেন। তাদের অপেক্ষার অবসান শেষে কমলাপুর থেকে ঈদের ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হয়েছে।

শনিবার (২৩ এপ্রিল) সকাল ৮টার কিছু সময় পর কমলাপুর রেলস্টেশনের দুইপাশ মিলিয়ে ২৬টি কাউন্টারে একসঙ্গে টিকিট বিক্রি কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। এর মধ্যে একটি কাউন্টের শুধুমাত্র নারী ও প্রতিবন্ধীদের টিকিট দেওয়া হচ্ছে। এদিকে একই সময় কাউন্টারগুলোর পাশাপাশি অনলাইনেও ৫০ শতাংশ টিকিট বিক্রি শুরু হয়েছে।

বাংলাদেশ রেলওয়ের তথ্য অনুযায়ী, ২৭ এপ্রিলের টিকিট দেওয়া হচ্ছে আজ (২৩ এপ্রিল)। একইভাবে ২৮ এপ্রিলের টিকিট পাওয়া যাবে ২৪ এপ্রিল (রোববার), ২৯ এপ্রিলের টিকিট ২৫ এপ্রিল (সোমবার), ৩০ এপ্রিলের টিকিট ২৬ এপ্রিল (মঙ্গলবার) এবং ১ মের টিকিট ২৭ এপ্রিল (বুধবার) বিক্রি করবে বাংলাদেশ রেলওয়ে।এবা

র ‘টিকিট যার, ভ্রমণ তার’ এই স্লোগান বাস্তবায়নে যাত্রীদের এনআইডি-জন্ম সনদ ফটোকপি কাউন্টারে প্রদর্শন করে টিকিট ক্রয় করতে হবে। এনআইডি ছাড়া অন্য কোনো পরিচয়পত্র দিয়ে ট্রেনের টিকিট কাটা যাবে না।

বাংলাদেশ রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে, আগামী ২৫ এপ্রিল থেকে ঈদের আগের দিন পর্যন্ত কোনো আন্তঃনগর ট্রেনের সাপ্তাহিক বন্ধ থাকবে না এবং ঈদের পরে যথারীতি তা কার্যকর করা হবে। সাপ্তাহিক বন্ধ বাতিলের ফলে অতিরিক্ত ৯২টি আন্তঃনগর ট্রেন বিশেষ ট্রিপে পরিচালিত হবে।

অগ্রিম টিকিট বিক্রি বিষয়ে কমলাপুর স্টেশন ম্যানেজার মাসুদ সারওয়ার জানিয়েছেন, আমরা আগেই যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছি আগেই। আশা করছি সুষ্ঠু সুন্দর পরিবেশে সুশৃঙ্খলভাবে টিকিট বিক্রি কার্যক্রম পরিচালিত হবে। কাউন্টারের পাশাপাশি অনলাইনে ৫০ শতাংশ টিকিট বিক্রি হবে। যতক্ষণ টিকিট থাকবে যাত্রীরা তা পাবেন। সার্বিক পরিস্থিতি ভালো রাখতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য, রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা নিয়োজিত থাকবেন। আমরা সার্বিক চেষ্টা করছি যাত্রীরা যেন নির্বিঘ্নে টিকিট পেতে পারেন।

জানা গেছে, ঈদ যাত্রার বিশেষ ট্রেনগুলোর মধ্যে চাঁদপুর স্পেশাল ১ ও ২ ট্রেন চট্টগ্রাম-চাঁদপুর-চট্টগ্রাম রুটে ঈদের আগে ২৯ এপ্রিল থেকে ১ মে এবং ঈদের পর ৪ মে থেকে ৮ মে পর্যন্ত চলবে। আর দেওয়ানগঞ্জ স্পেশাল ট্রেন ঢাকা-দেওয়ানগঞ্জ-ঢাকা রুটে ২৯ এপ্রিল থেকে ১ মে এবং ঈদের পর ৪ মে থেকে ৮ মে পর্যন্ত চলবে। খুলনা স্পেশাল (মৈত্রী রেক দিয়ে) খুলনা-ঢাকা-খুলনা রুটে ২৯ এপ্রিল থেকে ১ মে পর্যন্ত চলবে। শোলাকিয়া স্পেশাল-১ ট্রেন ভৈরববাজার-কিশোরগঞ্জ-ভৈরববাজার রুটে এবং শোলাকিয়া স্পেশাল-২ ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ-ময়মনসিংহ রুটে শুধুমাত্র ঈদের দিন চলবে।

এদিকে অগ্রিম টিকিট কিনতে কমলাপুর রেলস্টেশনে যাত্রী চাপ কমাতে রাজধানীর ৫টি কেন্দ্র থেকে নির্দিষ্ট রুটের টিকিট বিক্রি করা হচ্ছে। এগুলোর মধ্যে কমলাপুর থেকে পশ্চিমাঞ্চলগামী ও খুলনাগামী স্পেশাল ট্রেনের টিকিট; বিমানবন্দর থেকে চট্টগ্রাম ও নোয়াখালীগামী সব আন্তঃনগর ট্রেনের টিকিট; তেজগাঁও থেকে ময়মনসিংহ, জামালপুরগামী ও দেওয়ানগঞ্জ স্পেশালসহ সব আন্তঃনগর ট্রেনের টিকিট; ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট স্টেশন থেকে মোহনগঞ্জগামী মোহন ও হাওর এক্সপ্রেস ট্রেনের টিকিট এবং ফুলবাড়িয়া (পুরোনো রেলওয়ে স্টেশন) থেকে সিলেট ও কিশোরগঞ্জগামী সব আন্তঃনগর ট্রেনের টিকিট বিক্রি করা হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

GIPHY App Key not set. Please check settings

স্ত্রী হত্যার দায়ে স্বামীর আমৃত্যু কারাদণ্ড

আফগানিস্তানে মসজিদে বোমা হামলায় নিহত ৩৩