in

নারী জাগরণের অবিস্মরণীয় চরিত্র বিদ্রোহী জমিদার প্যারীসুন্দরী

[আজীবন লড়েছেন মাটি ও মানুষের পক্ষে, দেশমাতৃকার স্বার্থে। অত্যাচারী নীলকরের বিরুদ্ধে গ্রামের সাধারণ মানুষ ও লাঠিয়ালদের নিয়ে তাঁর সংগ্রাম কিংবদন্তিতুল্য। প্রতিপক্ষ ছিল নীলকর টমাস আইভান কেণী, সংক্ষেপে টি আই কেণী। বাংলার লড়াই সংগ্রামের ইতিহাসে ঐতিহাসিক নীল বিদ্রোহী প্যারীর ভূমিকাকে ‘জোয়ান অব আর্ক’ এর সঙ্গে তুলনা করা যায়। ড. আবুল আহসান চৌধুরী ‘প্যারীসুন্দরী নীলবিদ্রোহের বিস্মৃত নায়িকা’ শিরোনামে এক লেখায় উল্লেখ করেছেন: ‘জমিদার প্যারীসুন্দরী প্রজাদরদি, স্বদেশপ্রাণ ও অসাম্প্রদায়িক চেতনায় লালিত এক অসামান্য জননেত্রী।’ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের ইতিহাস বিভিন্ন সময়ে লেখা হয়েছে। অত্যাচারী নীলকর, নীলচাষ, নীলবিদ্রোহ এ শব্দগুলো আজও আমাদের মনে বিভীষিকাময় দিনের কথা স্মরণ করিয়ে দেয়। ইতিহাস শুধু অতীতের ফেলে আসা হাসি-কান্না, সুখ-দু:খ, আনন্দ-বেদনার বহি:প্রকাশ ঘটায় না- সাথে সাথে অতীত থেকে শিক্ষা নিয়ে ভবিষ্যৎ চলার পথের প্রেরণার উৎস ও সঠিক দিশা দিতে মুখ্য ভূমিকা পালন করে থাকে। কুষ্টিয়ার ইতিহাস যেমন দীর্ঘ তেমনি গৌরবময়।]

 

প্যারীসুন্দরী নীল বিদ্রোহের অবিস্মরণীয় চরিত্র। স্বদেশ প্রেমের অনির্বান শিখাসম এক নাম। জন্ম আনুমানিক ১৮০০ সালে। অবিভক্ত বাংলার নদীয়া জেলার (বর্তমান কুষ্টিয়ার) মিরপুর উপজেলার সদরপুরের জমিদার রামানন্দ সিংহের কনিষ্ঠ কন্যা। মাতা তারা সুন্দরী। অষ্টাদশ শতকের শেষাংশ থেকে ঊনবিংশ শতকের মধ্যভাগ পর্যন্ত এই স্বাধীনচেতা ব্যক্তিত্বসম্পন্ন নারী জীবিত ছিলেন বলে অনুমান করা যায়। পুত্রহীন রামানন্দের দুই কন্যার মধ্যে গোপী বড় (কেউ কেউ বলে থাকেন ব্রজ সুন্দরী) এবং প্যারীসুন্দরী ছোট ও অবিবাহিত। কুমারখালীর রেশম কুঠিতে কাজ করে রামানন্দ সম্পদ করেন এবং নদীয়ার (কুষ্টিয়া) মিরপুর থানার ইসলামপুর ও বেগমাবাদ পরগনা কিনে জমিদার হয়ে বসেন। উত্তরাধিকার সূত্রে গোপী ও প্যারী তাঁরই অধিকার পান। অর্থাৎ মিরপুর উপজেলার সদরপুর এ যে মহিলা জমিদার ছিলেন, তিনিই প্যারীসুন্দরী। তিনিই কুষ্টিয়া অঞ্চলের নীলবিদ্রোহের নেত্রী ছিলেন। প্রতিপক্ষ ছিল নীলকর টমাস আইভান কেণী, সংক্ষেপে টি আই কেণী। ফার্গুসন, শেলি ক্রফোর্ড, স্টিফেনসন, সিম্পসন প্রমুখ অত্যাচারী নীলকরের মধ্যে সর্বাপেক্ষা ভয়ংকর নাম তারই। ১৮৬০ সালে যে নীল বিদ্রোহ দেখা দেয় তা প্রকৃতপক্ষে কুষ্টিয়াতেই শুরু হয়।

 

নীল কমিশনের বারাসাতের ম্যাজিস্ট্রেট অ্যাসলি ইডেন বলেছিলেন, ‘খুন, জখম, দাঙ্গা, ডাকাতি, লুণ্ঠন, অগ্নিসংযোগ প্রভৃতি এমন কোনো অপরাধ নেই, যা নীলকরেরা করেনি।’ কেণী’র অত্যাচার ছিল এদের চেয়েও মাত্রাতিরিক্ত। যার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ান প্যারীসুন্দরী। কেণী’র কাছারি ছিল কুষ্টিয়া শহরের বেকী দালানে, কুঠি ছিল অনতিদূর শালঘর মধুয়ায়। প্যারীসুন্দরীর দেশপ্রেম, প্রজাহিতৈষণার বিপরীতে কেণী’র অন্যায়, অত্যাচার ও নির্যাতনের কাহিনি ঐতিহাসিক গ্রন্থসমূহে দেখা যায়। হরিশচন্দ্র মুখোপাধ্যায় সম্পাদিত ‘দ্য হিন্দু পেট্রিয়ট পত্রিকায়’ও এ সংক্রান্ত খবর প্রকাশিত হয়েছে। সবিশেষ রয়েছে সাহিত্যিক মীর মশাররফ হোসেনের ‘উদাসীন পথিকের মনের কথা’ ও রাইচরণ দাসের ‘মনের কথা অনেক কথা’ সবিস্তারে জানার জন্য। প্যারীসুন্দরীর সাহস, বুদ্ধিমত্তা ও দেশপ্রেমের দৃষ্টান্ত গ্রন্থে উদ্ধৃত হয়েছে এভাবে: ‘আমার লাঠিয়াল কুঠি লুট করিয়াছে, দশজনের মুখে এ কথা শুনিয়া আমার সুখবোধ হইতেছে। আমি বাঙালির মেয়ে, সাহেবের কুঠি লুটিয়া আনিয়াছি, ইহা অপেক্ষা সুখের বিষয় আর কি আছে।’ নীলকর কেণী ও জমিদার কন্যা প্যারীসুন্দরীর লড়াই ছিল নাটকীয়তায় পূর্ণ, যা কল্পনার-গল্প-উপন্যাস-নাটকের কাহিনীকেও হার মানায়। ধূর্ততা, শঠতার ফাঁদের বিপরীতে বীরোচিত প্রজ্ঞা ও নৈপুণ্যে মাথা উঁচু করে দেশের জন্য সর্বস্ব দিয়ে নিজেকে উৎসর্গ করার ব্রত বাংলার নীলবিদ্রোহের ইতিহাসে স্বদেশ প্রেমের অনির্বান শিখার মর্যাদা পেয়েছে। প্রজাবান্ধব প্যারীসুন্দরীর জীবন ও কর্ম দেশপ্রেমে উজ্জীবিত করার মতো, অগ্নিমন্ত্রে দীক্ষিত হওয়ার মতো। যেমন, প্যারী’র দুর্বার বক্তব্য: ‘যে ব্যক্তি যে কোন কৌশলে কেণীর মাথা আমার নিকট আনিয়া দিবে, এই হাজার টাকার তোড়া আমি তাঁহার জন্য বাঁধিয়া রাখিলাম। …দুরন্ত নীলকরের হস্ত হইতে প্রজাকে রক্ষা করিতে জীবন যায়, সেও আমার পণ। আমি আমার জীবনের জন্য একটুকুও ভাবি না। দেশের দুর্দ্দশা নিরীহ প্রজার দুরবস্থার কথা শুনিয়া আমার প্রাণ ফাটিয়া যাইতেছে।’ প্যারীসুন্দরীর সঙ্গে সর্বস্ব হারানো জনগণের সর্বাত্মক অংশগ্রহণ ছিল। প্রতি বিঘা জমিতে নীলচাষে খরচ হতো ১০ টাকা, অথচ নীলকরেরা মূল্য দিত সাড়ে তিন টাকা। নদীয়ায় ১৭ হাজার ৬০০ বিঘা জমিতে ৭০০ মণ নীল উৎপন্ন হতো। এর মধ্যে কুষ্টিয়া ছিল প্রথম, যার নেপথ্য ক্রীড়নক ছিল অত্যাচারী নীলকর টি আই কেণী। কেণী ও প্যারীসুন্দরীর বিরোধের সূত্রপাত ‘ভাঁড়ল-পোড়াদহ’ অঞ্চলের ধানের জমিতে জোরপূর্বক নীলচাষ করা নিয়ে। অত্যাচারে অতিষ্ঠ কৃষক, প্রজা, চাষিরা প্যারীসুন্দরীর কাছে দিনের পর দিন প্রতিকারের জন্য নালিশ জানায়। তিনি নায়েব রামলোচনকে লাঠিয়াল বাহিনী নিয়োগ ও আক্রমণের পরামর্শ দেন। কেণীর বাহিনীর কাছে তারা পরাজিত হয়। ভাঁড়ল কুঠি লুণ্ঠিত হয়। কেণীর অত্যাচার বৃদ্ধি পায়। প্যারীসুন্দরী নতুন অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে কেণীর কুঠিতে আক্রমণ করেন। কেণী কুঠিতে না থাকায় প্রাণে বেঁচে যান। মিসেস কেণী অজস্র কাঁচা টাকা ছড়িয়ে দিয়ে প্যারীসুন্দরীর লাঠিয়ালদের হাত থেকে নিজেদেরকে রক্ষা করেন। কেণী প্যারীসুন্দরীর বিরুদ্ধে কুঠি লুটের মামলা করেন। ভীত না হয়ে উল্টো গর্ববোধ করেন প্যারীসুন্দরী। কেণীর মাথার জন্য পুরস্কার ঘোষণা করেন এবং মিসেস কেণীকে বালা পরিয়ে বাঙালি বধূ সাজানোর অঙ্গীকার করেন, ক্ষিপ্ত হয়ে কেণী ঘোষণা করেন- যে প্যারীসুন্দরীকে তাঁর কাছে এনে দিতে পারবে তাকে তিনি এক হাজার টাকা পুরস্কার দেবেন এবং প্যারীসুন্দরীকে গাউন পড়িয়ে মেম সাজিয়ে তাঁর কুঠিতে রাখবেন।

শুরু হয় পাল্টাপাল্টি পুরস্কার ঘোষণা ও আক্রমণ। আবারও কেণীর কুঠিতে আক্রমণ করে প্যারী বাহিনী। চতুর কেণী পালিয়ে বাঁচেন। পাহাড়াদার ম্যাজিস্ট্রেট ও পুলিশও প্রাণে রক্ষা পায়। দারোগা মোহাম্মদ বক্স খুন হলে তাঁর লাশ প্যারীর লোকেরা খণ্ড-বিখণ্ড করে প্রায় ৫০টি সড়কির মাথায় গেঁথে তা চাঁপাইগাছির বিলে ফেলে দেয়। আবারও প্যারীসুন্দরীর বিরুদ্ধে মামলা হয়। প্রহসনের বিচারে যাবতীয় জমিদারি ইংরেজ সরকার অধিকার করে। গরিব কৃষক, চাষি ও প্রজা নিয়ে অকূলে পড়েন প্যারীসুন্দরী। রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করে জমিদারি ফেরত পান। কিন্তু ততদিনে তিনি ঋণের ভারে জর্জরিত হয়ে পড়েন, ফলে জমিদারির বিরাট অংশ পত্তনি বন্দোবস্ত করে দেন। গবেষক ড. আবুল আহসান চৌধুরী ‘প্যারীসুন্দরী নীলবিদ্রোহের বিস্মৃত নায়িকা’ শিরোনামে এক লেখায় উল্লেখ করেছেন, ‘প্যারীসুন্দরী প্রজাদরদি, স্বদেশপ্রাণ ও অসাম্প্রদায়িক চেতনায় লালিত এক অসামান্য জননেত্রী।’

 

যোগ্যতার বিচারে একসময় অত্যাচারী কেণী নিজেই স্বীকার করেছেন, প্যারীসুন্দরী সব দিক থেকেই তাঁর চেয়ে অগ্রগামী ছিলেন। তাঁর সাহস ও দেশপ্রেমের কাছে তিনি ভীতসন্ত্রস্ত ও শঙ্কিত ছিলেন। তাঁর বক্তব্যে প্রকাশ পেয়েছিল: ‘স্ত্রী লোকের মধ্যে প্যারীসুন্দরীর নাম করিতেও ভয় হয়।’ প্রজাদরদি, মানবহিতৈষী, দেশপ্রেমিক প্যারীসুন্দরী সমকালে বিস্মৃত এক নাম। বিপরীতে টি আই কেণী বর্বর অত্যাচারের প্রতিভূ। কুষ্টিয়া শহরের বেকী দালানের (ক্রিসেন্ট বিল্ডিং) রাস্তাটি লোকমুখে ক্রিসেন্ট রোড এবং কোর্ট স্টেশন মুখী রাস্তাটি এখনও কেণী রোড নামে পরিচিত। প্যারীসুন্দরী নীলবিদ্রোহের ইতিহাসে সংযোজন করেছেন স্বদেশপ্রেমের অনির্বান শিখা। যে ইতিহাসের ব্যপ্তিকাল ১৮৪৯ থেকে ১৮৬০ সাল পর্যন্ত। এই সংগ্রামের ধারাবাহিকতায় ধানের জমিতে জোরপূর্বক নীলচাষে বাধ্য করার নীতি থেকে সরে দাঁড়ায় ইংরেজ সরকার। বিদ্রোহী জমিদার প্যারীসুন্দরী ১৮৭০ সালে মৃত্যুবরণ করেন। নি:সন্তান প্যারীর জমিদারি অংশ চলে যায় তাঁরই জ্ঞাতি তারিণীচরণ সিংহের হাতে। পরের বছর কুষ্টিয়াকে দেয়া হয় মহকুমার মর্যাদা। শুধু নামে নয়, চিরকুমারী প্যারীসুন্দরী জীবন ও কর্মেও ছিলেন দেশপ্রেমের এক অনন্য প্রতীক।

 

বিস্তারিত জানতে:

ড. মুহম্মদ এমদাদ হাসনায়েন ও ড. সারিয়া সুলতানা, ‘কুষ্টিয়ার ইতিহাস’, দ্বিতীয় সংস্করণ, কণ্ঠধ্বনি প্রকাশনী, কুষ্টিয়া, একুশে গ্রন্থমেলা ২০২০

 

খুজতে হলে https://www.rokomari.com/search?term=কণ্ঠধ্বনি+প্রকাশনী

লেখক : ইতিহাস গবেষক ও প্রাবন্ধিক ড. মুহম্মদ এমদাদ হাসনায়েন

ই-মেইল: dr.hasnayen@gmail.com

Leave a Reply

Your email address will not be published.

GIPHY App Key not set. Please check settings

নারী জাগরণে হতে হবে প্রত্যয়ী

বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধের নারীরা কে কোথায়