in

শীতে সুস্থ থাকতে অবশ্যই যা খাবেন

সারা দেশে শীত এখন জেঁকে বসেছে। আর এই সময় সুস্থ থাকা যেন এক চ্যালেঞ্জ। এ সময় প্রকৃতি রুক্ষ হয়ে পড়ে। ঠাণ্ডা-কাশি, হাঁচি, জ্বরে অনেকেই আক্রান্ত হন। এ ক্ষেত্রে সুস্থ থাকতে সচেতনতার বিকল্প নেই। তবে শীতে অসুস্থ হওয়া ঠেকাতে পারে শীতের কিছু সবজি, যা খেলে দিব্যি তরতাজা থাকবেন আপনি।

গাজর: গাজরে আছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ। বিটা ক্যারোটিন সমৃদ্ধ গাজর চোখের সমস্যা থেকেও রক্ষা করে। লিভার ভাল রাখে। দাঁতের সুরক্ষাতেও গাজর অত্যন্ত কার্যকর বলে শোনা যায়।

পালং শাক : শীতে বাজারে পালং শাক প্রচুর পাবেন। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে ও শীতে সুস্থ থাকতে পালং শাক খেতে পারেন। পুষ্টিতে ভরপুর পালংয়ের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও ক্যানসারপ্রতিরোধী গুণের কারণে এটি ‘সুপারফুড’ হিসেবে পরিচিত। সবুজ পাতার এ শাক দ্রুত পেটের চর্বি কমাতে পারে। পালংয়ে ভিটামিন ও মিনারেল আছে, এতে ক্যালরি থাকে কম। তাই ওজন কমাতে খাবারে বেশি করে পালং রাখতে পারেন।

গবেষণায় দেখা গেছে, যাদের ওজন বেশি, তারা নিয়মিত পালং শাক খেলে বাড়তি ওজন কমে যায়। ফুলকপি: শীতের সবজি বললে প্রথমেই যার কথা মনে আসে, তা হলো ফুলকপি। ফুলকপি ভাজা হো‌ক বা আলু-ফুলকপির তরকারি- এর কোনও জবাব নেই। এতে আছে প্রচুর ক্যালশিয়াম, ভিটামিন, মিনারেল, অ্যান্টি-অক্সিড্যান্ট।

বাঁধাকপি: কপির কথা উঠলে বাঁধাকপির কথা বলতেই হয়। শীতকালে খিচুড়ির সঙ্গে বাঁধাকপির তরকারি দারুণ সমাহার। বাঁধাকপিতে আছে ফসফরাস। নানা ভাবে রোগ প্রতিরোধে সাহায্য করে বাঁধাকপি।

শিম: শিমের বীজে আছে প্রচুর পরিমাণ অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট। এতে থাকা অ্যান্টি ইনফ্ল্যামেটরি উপাদান হৃদরোগও নিয়ন্ত্রণ করে। চুলের জন্যেও শিম খুব উপকারী।

মটরশুটি: শীতকাল মানেই মটরশুটি। খিচুড়িতে মটরশুটি দিলে খিচুড়ির স্বাদই বদলে যায়। মটরশুটির তরকারি অমৃত। আরও নানা ভাবে এঈ সবজি খাওয়া যায়। মটরশুটি রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। কোলেস্টেরল কমায়। সুগার নিয়ন্ত্রণে রাখে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

GIPHY App Key not set. Please check settings

দেশে ২৪ ঘণ্টায় আরও ১ মৃত্যু, শনাক্ত ৩৭৩

সালমান খানকে সাপের ছোবল