আজ : ৬ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, সোমবার প্রকাশ করা : নভেম্বর ১৩, ২০২০

  • কোন মন্তব্য নেই

    রুক্ষ-শুষ্ক ত্বকের সেরা দাওয়াই পানি

    ত্বকের শুষ্কতাই ত্বকের নানা সমস্যার প্রধান লক্ষণ। আবার অনেকের ত্বকের ধরনই এমন। সারা বছরই ত্বকের এই সমস্যায় ভোগেন অনেকে। ত্বকের উজ্জ্বলতা চলে যাওয়া, র‍্যাশ,সহ বিভিন্ন সমস্যা দেখা দেয় এতে।

    শুষ্ক ত্বকে ঠিকভাবে মেকআপও বসতে চায় না। যাই লাগান না কেন তাই ভেসে থাকে। দেখতেও ভালো লাগে না। ত্বকের লাবণ্য এতে করে ধীরে ধীরে কমতে থাকে। পরিবেশের দূষণ এরজন্য অনেকখানি দায়ী। অত্যধিক দূষণের ফলে সরাসরি ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে আমাদের ত্বক। এতে ত্বকের কোমলতা হ্রাস পাচ্ছে। শুষ্কতা গ্রাস করে নিচ্ছে শরীরের প্রয়োজনীয় ইন্দ্রিয়কে।

    যেসব কারণে ত্বক শুষ্ক হতে পারে-

    > অনেকেই ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করেন না। ত্বকের ময়েশ্চারাইজিং ঠিকমতো না হলে ত্বক শুষ্ক হয়ে যায়। হারিয়ে যায় ত্বকের নিজস্ব লাবণ্য।

    > অনেকেই আছেন গোসলে গরম পানিকে বেশি প্রাধান্য দিয়ে থাকেন। গরম পানি পেশির সঞ্চারণ-প্রসারণের ক্ষেত্রে উপকারী হলেও তা ত্বকের স্বাভাবিক তেলকে নষ্ট করে দেয়। ফলে ত্বকে দেখা দেয় নানারকম সমস্যা। ত্বকও অনেকবেশি স্পর্শকাতর হয়ে ওঠে।

    > দিনের বেশিরভাগ সময়ে যারা এসি রুমে কাটান, তাদের এই সমস্যা দেখা দিতে পারে। এয়ার কন্ডিশন বাতাসের জলীয়বাষ্পের ঘনত্বকে কমিয়ে দেয়। ফলে ত্বকের এপিডার্মাল স্তর ক্ষতিগ্রস্ত হয়, শুষ্ক হয়ে ওঠে। ত্বকে অ্যালার্জির জন্ম হয়।

    > সাবান দিয়ে মুখ ধোয়ার ফলে ত্বকের স্বাভাবিক তেল নষ্ট হয়ে যায়। বারবার মুখ ধোয়ার কারণে ত্বকের শুষ্কতা বৃদ্ধি পায়। দিনে নির্দিষ্ট সময়েই তাই মুখ ধোয়া উচিত।

    > সানস্ক্রিন ব্যবহার না করলেও দেখা দিতে পারে ত্বকের শুষ্কতা।

    এ থেকে রেহাই দিতে পারে পানি। জেনে নিন কীভাবে-

    ব্যস্ততা এখন নিত্য দিনের সঙ্গী হয়ে গেছে। আর এই ব্যস্ততাময় জীবনে খাবার কিংবা পানি কোনোটায় পরিমাণ মতো খাওয়া হয়ে ওঠে না। কিন্তু এই অবহেলায় ধীরে ধীরে গভীর ভাবে ক্ষতি করে ত্বকের। শরীরে পানির এবং অক্সিজেনের ঘাটতি নষ্ট করে দেয় ত্বকের স্বাভাবিক লাবণ্য।

    হারিয়ে যায় ত্বকের জৌলুস। কিন্তু হারিয়ে যাওয়া এই উজ্জ্বলতা আবার ফিরে আসে ঠিকমতো পানি এবং খাবারের সঙ্গে। পরিমাণমতো পানি শরীরের ক্ষতিগুলোকে পূরণ করে ত্বকে স্বাভাবিক জৌলুস ফিরিয়ে দিতে সাহায্য করে। ত্বক ভেতর থেকে আবার হয়ে ওঠে তৈলাক্ত, সুন্দর এবং লাবণ্যময়।

    তাই দিনে তিন থেকে চার লিটার পানি পান করুন। চাইলে শরবত, ডাবের পানি, ফলের রস খেতে পারেন। এছাড়াও ত্বকে ময়েশ্চারাইজার লাগাতে ভুলবেন না। ঘরে থাকুন কিংবা বাইরে সানস্ক্রিন লাগাতে হবে অবশ্যই।

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *